Tuesday, October 4, 2011

Short Story by Nasim Rana Masud


জিজ্ঞাসার জবাব
নাসিম রানা মাসুদ

রনক, এস, এস, সি পরীক্ষা শেষ হয়েছে। সে এখন নিজের গ্রামের বাড়িতে। রনকের হঠা মনে হল মদনের সাথে তো দেখা করা হয়নি। তাই সে মদনের সাথে দেখা করতে বাড়ি থেকে বের হল। মদনের সাথে দেখা হওয়াতেই রনক জিজ্ঞেস করল; কিরে মদন কেমন আছিস?
মদন বলল: ভালো থাকি না হয় খারাপ থাকি তোর কি? তুই তো বাড়ি ফিরে আমার সাথে দেখাই করিস নি।
মদনের অভিমান দেখে রনক একটু লজ্জিত হয়ে মনে মনে বলল আসলেই আমার এটা ভুল হয়েছে। বলল: সরি দোস্ত আসলে--
মদন:এখন তো সরে যাবি এটা আমার জানা ছিল।
রনক:তুই কি সত্যিই কষ্ট পেয়েছিস?
মদন: (হেসে) আমি কি সত্যিই কষ্ট পেয়েছি?
রনক: শোন, অনেকদিন কোথায়ও ঘুরতে যাওয়া হয়না। কালকে একটু কোথাও ঘুরতে যেতে চাচ্ছি, তোর কি কোন কাজ আছে?
মদন: বাবা, এখন আবার কাজের প্রশ্ন। আমাকে ছাড়া তোর কখনো কোথাও যাওয়াই হতো না, আর এখন আমি ফাকা আছি নাকি আমার কোন কাজ আছে তার খবর! আচ্ছা তুই কি আমাকে সাথে নিতে চাচ্ছিস?
রনক: তোর কাছে এতগুলো উত্তর আশা করিনি, আমি বলতে চাচ্ছি তুই যাবি কিনা?
মদন: (হেসে) আমি বলতে চাচ্ছি আমাকে সঙ্গে নেওয়া হবে কিনা? হা হা হা--
রনক সকাল সকাল গোসল সেরে ওর মাকে বলল, মা নাস্তা দাও। রনকের মা বলল:কেন? কোথাও যাবি নাকি?
রনক: হ্যাঁ মা অনেকদিন কেথাও যাওয়া হয়না, মনে করছি একটু ঘুরতে যাব।
রনকের মা: তা কার সাথে যাবি?
রনক: মদনের সাথে।
রনকের মা: তা কিসে যাবি?
রনক: সাইকেলে।
রনকের মা: রাস্তাঘাটে সাবধানে যাস।
রনক সায় দিল, মদন কে সাথে নিয়ে সাইকেলে ছেপে উদ্দেশ্যহীন ভাবে ঘুরতে বের হল রনক, মদন সাইকেল চালাচ্ছে আর রনক পেছন সিটে বসে আছে। পথের মাঝে দুজনে কতদিনের যত জমানো গলপ ছিল তা একে অপরকে বলে যাচ্ছে ও শুনে যাচ্ছে। হঠা রাস্তার বাম দিক থেকে একব্যক্তি তাদের কে জিজ্ঞেস করল: কত বাজে ভাই?
রনক বলতে যাবে তার আগে মদন বলে ফেলল: আপনার কটার প্রয়োজন?
রনক বিরক্ত হল এবং কথাটা এড়িয়ে যাওয়ার জন্য ব্যক্তিটিকে (হেসে)বলল: এখন সাড়ে নয়টা বাজে। কিছুক্ষন পর রনক মদনকে জিজ্ঞেস করল: তুই লোকটির সাথে এমন ব্যবহার করলি কেন?
মদন:ওর জন্যই এটা প্রাপ্য ছিল।
রনক: কেন?
মদন: ও এই আধুনিক যুগে ঘড়ি ব্যবহার করবেনা কেন?
রনক: ওর সামার্থ্য না থাকতে পারে।
মদন: আজকের সময়ে দুশো টাকা দিয়ে ঘড়ি কেনার সামার্থ্য কার নেই, ওরা সময় জিজ্ঞেস করে ঠিকই কিন্তু ঘড়ি  যারা ব্যবহার করে তারাকে দেখতে পারে না, বলে যারা নাকি ঘড়ি ব্যবহার করে তারা নোংরা ছোটলোক।
রনক: সবাইকে একইভাবে দেখলে হয়না, পৃথিবীতে সবলোক খারাপ নয়।
মদন: জানি, তবে এরা সবাই এমন।
রনক মনে মনে ভাবল, হায়রে মানুষ একজনের কাছে যেন অন্যজনের কোন মুল্য নেই।অথচ উচি ছিল, পৃথিবীতে সবাই সবার সহযোগিতা করবে এমন টি হওয়া। প্রত্যেকেই প্রত্যেককে প্রাপ্য অনুযায়ী সম্মান অথবা স্নেহ করবে।সবাই সবার সাথে ভালো ব্যবহার করবে, একে অন্যের সম্পদ ভক্ষন না করে সংরক্ষন করবে। কিন্তু কি এ পৃথিবীর মানুষের রূপ, প্রত্যেকেই নিজেকে বড় ভাবে আর অন্যেরা যেন তার কাছে কীট পতঙ্গের মত। এমন ভাবনার মধ্যে কিছু পথ পাড়ি দিল তারা।
নিরবতা ভেঙ্গে মদন বলল: কিরে কিছু বলছিস না যে?
রনক: বলার মত কোন ইসু নেই তাই।
মদন বলল: তোদের পরীক্ষার ফলাফল কবে বের হবে?
রনক: দুই মাস পর। পরীক্ষার কথা বলিস না তো এখন। এখন পরীক্ষা থেকে মুক্ত হয়ে ঘুরতে চাই রেজাল্ট নিয়ে ভাবতে চাই না, এখন একটু মুক্ত হয়ে ঘুরতে চাই। মদন জানিস বাম দিকের ঐ বাড়িটার পরের বাড়িটা আমার বন্ধুর বাড়ি। ওর নাম সজীব। মদন অভিমানের সুরে বলল: তুই কি তোর বন্ধুর সাথে আমার পরিচয় করিয়ে দিবি? তোরা তো পড়ালেখা করিস, তোদের অনেক মান আর আমি তো মুর্খ মানুষ, তোদের বন্ধুর সাথে আমার কথাবলা কি সাজে?
রনক বলল: সাইকেলটা দাড় করা। মদন সাইকেল দাড় করালে রনক বলল: তুই আমার সাথে চলিস না? আমি কি তোর সাথে খারাপ ব্যবহার করি? নাকি অন্য কোন তত্ত্ব উদ্ভাবন করিস।
মদন: তুই বলিস কারন তুই আমার ছোটকালের বন্ধু তাই।
রনক: চল শালা, তোকে এখনই সজীবের বাড়ীতে নিয়ে যাব।
মদন: না না এখন যাব না, পরে যাব।
রনক: তোর কোন কথা শুনবনা, চল এখনই যাব। তারা দুজনে সজীবের বাড়ীর দিকে পা বাড়াল। যেতে যেতে মদন বলল, আমি মুর্খ মানুষ তোর বন্ধু যদি আমাকে জিজ্ঞেস করে আপনি কি করেন তাহলে আমি কি জবাব দেব।
রনক: তুই যা করিস তাই বলবি। রনক ও মদন একটি বাড়ি পেরিয়ে সজীবের বাড়ীতে পেীছাল। সেখানে এক ছোট্ট খুকু কে দেখে রনক বলল, এই খুকু বাড়ীতে কি সজীব আছে? খুকু বলল: জানিনা দেখতে হবে।
রনক: তুমি কি একটু যাবে?
খুকু বলল: আপনারা এখানে দাড়ান আমি ডেকে দিচ্ছি। কিছুক্ষন পর সজীব বেরিয়ে এসে রনকদের দেখে বলল;কিরে কখন এলি, কেমন আছিস?
রনক: এইত এখনই, আছি ভালোই আছি। তুই ভালো আছিস?
সজীব: হ্যাঁ ভালো। সজীব মদনের দিকে হাত বাড়িয়ে বলল; আমি সজীব।
মদন: আমি রনকের মুখ থেকে শুনেছি। আমি মদন।
সজীব: ও আচ্ছা। তো রনক বাড়ীর ভেতরে চল।
রনক: না রে থাক আজ আর যাচিছ না।
সজীব: তুই না হয় আসবি, কিন্তু এ ভাই তো সম্ভবত আসবেন না।
মদন: না ভাই আজ আর যাচিছ না, আর আসবনা কেন? রনকের সাথেই হয়ত একদিন চলে আসব।
রনক: তাহলে আসিরে সজীব।
সজীব: চলে যাবি?
রনক:হ্যাঁ আজকে আর দেরি করছিনা।
সজীব: তাহলে যা কিন্তু এ ভাইকে নিয়ে আবার আসবি,আচ্ছা?
রনক: আচ্ছা ঠিক আছে, এখন চললাম। সজীবের সাথে সাক্ষাত হওয়ায় মদন খুব খুশি। সে রনককে বলল, কিরে তোর বন্ধুরা এতটা ভাল আগে জানতাম না। এত সুন্দর করে কথা বলে- এমন মূহুর্তে উপর থেকে কে যেন পানি ফেলছে যা রনকের ও মদনের শরীর ভিজে যাওয়ার উপক্রম হল। তারা উপরের দিকে তাকিয়ে দেখল যে এক সুন্দরী যুবতী ছাদ থেকে এভাবে পানি ফেলল।
রনক বলল: আপু এভাবে পানি ফেলছ কেন?
মেয়েটি জবাবে বলল: তোর কি বাপের পানি ফেলছি?
মদন: বেশি--
রনক: এই মদন কিছু বলার প্রয়োজন নেই।
কিছুক্ষন নিরব থাকার পর মদন বলল; কিরে মেয়েটি এভাবে অপমান করল আর তুই কিছুই বললি না?
রনক: হয়ত ও বুঝতে পারেনি যে আমাদের গায়ে পানি পড়েছে, তাছাড়া ও হয়ত মনে করছে আমরা ওর সাথে দুষ্টামি করছি তাই এমন ভাবে উত্তর দিয়েছে।
মদন: ও আমরা এমন উত্তর দিলে খুব খারাপ হয়ে যায়, আর অন্যেরা দিলে সে অতটা বুঝেনা। তুই যে কি না।
রনক: চুপচাপ সাইকেল চালা, কোন কথা বলবিনা।
মদন: হ্যাঁ আমি সাইকেল চালায় আর তুই এসব কান্ড কর
রনক: তোর বন্ধুর সাথে কি দেখা করাবি?
মদনও বলল: লোকটির সাথে এমন আচরন করলি কেন?
এভাবেই এগিয়ে চলল তারা, সোনামসজিদ পেীছানোর পর মসজিদটিকে ঘুরে ঘুরে দেখল দুজনে।
এসময় মদন বলল: হ্যাঁরে রনক এই মসজিদ নাকি জিনে তৈরি করেছে।
রনক: কে বলল তোকে এসব কথা?
মদন: আমি তাই তো শুনেছি, এটা নাকি একরাতে জিনেরা তৈরি করেছে।
রনক: জি না সাহেব, এটা তৈরি করেছে; একজন সম্রাট যিনি এই গেীড় এলাকার সম্রাট বা রাজা ছিলেন তার নাম আলাউদ্দিন হোসেন শাহ
মদন: একটু লজ্জিত হয়ে, লেখাপড়া করলে কত কিছু যে জানা যায় তার হিসেব নেই।
রনক: চল সোনামসজিদ বাসস্টান্ড হয়ে বাড়ি যাব।
মদন: তার আগে কিছু খাওয়া দরকার।
রনক: তাতো লাগবেই, তাইতো বলছি, বাসস্টান্ড হয়ে যাব;ওখানে একটা হোটেল আছে ওখানকার পুরী ভাল, খেয়ে দেয়ে বাড়ির দিকে পা বাড়াব। দুজনে বাসস্টান্ডের পাশে এসে দাড়াল। একজন যাত্রী বাস কাউন্টারে বসা একজন কে জিজ্ঞেস করল কি ভাই বাস কি ছেড়ে গেছে?
লোকটি জবাবে বলল: আপনার চোখ নেই, দেখতে পান না গাড়ী নেই? গাড়ী না থাকলে তো বুঝতে হবে তা ছেড়ে গেছে। যাত্রী লজ্জিত হয়ে বলল: ভাই এত রাগছেন কেন?
লোকটির জবাবে রনক আবারও ব্যথিত হলো;মনে মনে ভাবল মানুষ কি মানুষের জন্য নয়?
মদন বলল: কিরে তোর চোখ কান কি ছারাবারা হয়ে গেল না কি?
রনক: নারে এসব আচরন আমাকে ভালো লাগে না। তা বাড়ি যাবি না?
মদন: (হেসে বলল) না এখানেই সারা জনম থেকে যাব।
রনক ও মদন এগিয়ে গেল ক্ষনিকটা। দেওয়ালে লেখা একটি উক্তি দেখে রনক বলল; দেখ মদন ওয়ালে কি লেখা।
মদন বলল: কি?
রনক পড়ে শোনাল; জীবে প্রেম করে যে জন, সেই জন সেবিছে ঈশ্বর মানে কি জানিস মদন, তার মানে হল; আলাহ তায়ালার ভালবাসা পেতে হলে আমাদের সর্ব প্রথম মানুষকে ভালবাসতে হবে, প্রতিটি প্রাানি কে ভালবাসতে হবে।
মদন: এত সুন্দর কথা কে বলেছে?
রনক: একজন মানব প্রেমী মানুষ, যার নাম ¯^vgx বিবেকানন্দ।
মদন: সে তোর মত লেখাপড়া করেছে, নারে?
রনক: তাতো অবশ্যই করেছেন?
মদন: তুই কি এসব মহান ব্যক্তিদের মত হতে পারবি না?
রনক: বিষয়টিকে একটু সহযভাবে নিয়ে হেসে বলল; কেন পারব না?

নাসিম রানা মাসুদ
কবি, লেখক ও সাংবাদিক